CKAGOJ
ঢাকা শনিবার , ১৮ মে ২০২৪
  1. সর্বশেষ

নতুন শিক্ষা কারিকুলাম সমাজের মূল্যবোধ সৃষ্টি ও দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনে সহায়ক

মমতাজ রোখসানা আখতার
১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৫:৪৮ পিএম

Link Copied!

শুরু করছি , আলবার্ট আইনষ্টাইনের শিক্ষার সংজ্ঞা দিয়ে, “ স্কুলে যা শেখানো হয়, তার সবটুকুই ভুলে যাওয়ার পর যা থাকে তাই হলো শিক্ষা।“ আমি মনে করি নতুন শিক্ষা কারিকুলাম হল সেই আইনষ্টানের যুগান্তকারী সংজ্ঞার অমূল্য ভীত। কারন এই কারিকুলামে থাকছে শিক্ষার্থীর অভিজ্ঞতা ভিত্তিক শিখন ও যোগ্যতা ভিত্তিক মূল্যায়ন। আর এই জন্যই প্রয়োজন শিক্ষার সঠিক গুণগত মান রক্ষা করা। এইটাই স্পষ্ট প্রতিয়মান যে, গুণগত শিক্ষার অভাবে কর্মজগতে সংযোগ স্থাপনে আমাদের দেশ অনেক খানি পিছিয়ে আছে।

আমাদের দেশের একটা বৃহৎজনগোষ্ঠি উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছে সু-নির্দিষ্ট কোন ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ছাড়াই। আর এই জন্যই অর্জিত জ্ঞানকে কর্মক্ষেত্রের সঙ্গে সমন্বয় করতে খুবই কষ্টদায়ক। আমার বিশ্বাস নতুন কারিকুলাম আমাদের এই প্রজন্মকে কর্মক্ষেত্রের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলবে এবং শিক্ষার্থীরা চলমান শিক্ষার সাথে সঙ্গতি রেখেই নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা পূর্ব থেকেই নির্ধারণ করে রাখবেই। আমাদের সকলকেই মনে রাখতে হবে যে, এই শিক্ষাক্রমেই মূখস্থ নির্ভর শিক্ষাকে অতিক্রম করেই হাতে কলমে শিক্ষার উপর বেশী জোর দিচ্ছে যা শিখনের স্থায়ীত্ব বৃদ্ধিতে বিশেষভাবে সহায়ক। শ্রেণীকক্ষে একজন শিক্ষার্থী তার শিক্ষকের সহায়তায় যে জ্ঞান অর্জন করছে তা খুব সহজেই তার বাস্তব জীবনে প্রতিফলিত করতে পারবে। এতেই শিক্ষার্থী আত্মবিশ্বাসী হয়ে নিজেকে কর্মক্ষেত্রে কর্মযজ্ঞের সাথে সঙ্গতি স্থাপনে সক্ষম হবে।

এই শিক্ষাক্রমের আরেকটি বিশেষ উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে শিক্ষার্থীর শিখন অভিজ্ঞতা ও মূল্যায়নের মাধ্যমেই শিক্ষার্থীর যে বয়স ভিত্তিক জ্ঞান, দক্ষতা অর্জন করা দরকার তা যেন সঠিকভাবে নিশ্চিত হয়। আমরা আশা করছি যে, এই শিক্ষাক্রমের সফল বাস্তবায়নে সেটাই সম্ভব। নতুন শিক্ষাক্রমের সফল বাস্তবায়্নের পথ অতটা মসৃণ না কারন যতক্ষন না আমাদের দেশের সুশীল সমাজ, মাঠ পর্যায়ের বৃহত্তর জনগোষ্ঠির কাছে এর বৈশিষ্ট্য, লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সমূহ অর্থপূর্ণভাবে বুঝানো সম্ভব না হয়। এখন ভাবার বিষয় কিভাবে সমাজের এই বিশাল জনগোষ্ঠীর কাছে তা অর্থপূর্ণভাবে পরিষ্কার করা। আমাদের দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ও বাংলাদেশ টেলিভিশন আছে এবং তা একটা বৃহত্তর জনগোষ্ঠী প্রতিদিন তা দেখে। বাংলাদেশ সরকার ইচ্ছে করলে টিভিতে নির্দিষ্ট একটা প্রোগ্রাম চালু করতে পারে এই কারিকুলামের উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য ও সফল ভবিষ্যৎ নিয়ে।

মাঠ পর্যায়ের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর যে নেতিবাচক ধারনা এই কারিকুলাম নিয়ে তা শতভাগ নিরসন না হলে ও অধিকাংশ জনগোষ্ঠী এর সঠিক মর্মার্থ অনুধাবন করতে পারবে বলেই আমার বিশ্বাস। নতুন কারিকুলামের সঠিক বাস্তবায়নে আমার দেশের ভবিষ্যৎ জনগোষ্ঠী কর্মমূখী শিক্ষায় শিক্ষিত হবে এতে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে দেশের বেশীরভাগ তরুণ সমাজ মুক্তি পাবে। আমরা এখন যে স্মার্ট বাংলাদেশের কথা ভাবছি তা শুধু সম্ভব এই বৃহত্তর তরুণ সমাজকে জ্ঞান, দক্ষতা ও যোগ্যতা ভিত্তিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে, শিক্ষার সঙ্গে কর্মক্ষেত্রের সঙ্গতি পূর্ণ সমন্বয়ের মাধ্যমেই। একটি দেশ সামাজিক, রাজনৈতি ও অর্থনৈতিভাবে সমৃদ্ধি লাভ করে সে দেশের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর জীবন দক্ষতা ভিত্তিক ও কর্মমূখী শিক্ষার সঙ্গতি পূর্ণ সমন্বয়ের মাধ্যমেই। এই কারিকুলামের অভিজ্ঞতা ও যোগ্যতা ভিত্তিক শিক্ষার নেতৃত্ব দিবেন আমাদের দক্ষ, অভিজ্ঞ ও যোগ্য শিক্ষাবিদ্গন।

এই শিক্ষার সাথে অর্থনীতির সংযোগ সাধনের চেষ্টা করতে হবে। কাজের ধরনের পরিবর্তনের সঙ্গে শিক্ষার কিছু কিছু জায়গা পরিবর্তন করা যেতে পারে। আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে কর্মক্ষেত্রের চাহিদা অনুযায়ী আমাদের শিক্ষার্থীদের মাঝে সফট স্কিল ও হার্ড স্কিল ডেভেলপ করতে হবে। একজন শিক্ষার্থী সব বিষয়ের উপর দক্ষ ও অভিজ্ঞ হবে না, নির্দিষ্ট কোন বিষয়ের উপর তার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা থাকতে পারে। একজন শিক্ষক, অভিভাবক ও সমাজের মানুষের দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে তার সেই নির্দিষ্ট বিষয়ের জ্ঞানকে পরিমার্জন এর মাধ্যমেই সমাজে সফল মানুষ হিসাবে তাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করা। আর নতুন কারিকুলামের প্রতিটি শিখন অভিজ্ঞতা শিক্ষার্থীর মাঝে যথাযথ সঞ্চালনের মাধ্যমেই সম্ভব সমাজে ও রাষ্ট্রের সফল এবং দক্ষ মানব সম্পদ তৈরী করা । এই দক্ষ ও অভিজ্ঞ মানব সম্পদই একদিন সমাজের মূল্যবোধ সৃষ্টি এবং নেতিবচক দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। এই শিক্ষাক্রমেই শিক্ষকের ভূমিকাই মূখ্য কারন এই শিক্ষাক্রমের সাথে পাঠদানে সম্পৃত্ত প্রতিটি শিক্ষকই বিষয় ভিত্তিক প্রশিক্ষিত এবং বহুমাত্রিক সৃজনশীল জ্ঞান, দক্ষতা, যোগ্যতা ও মানবিক গুন সম্পন্ন।

এইখানেই উল্লেখ্য যে, শিক্ষার সঙ্গে আনন্দের সংযোগ থাকা জরুরি। যে শিক্ষা পদ্ধতিতে নতুন কিছু শেখার আমেজ নেই, আনন্দ নেই, উৎসব নেই, একঘেয়েমিপূর্ণ, সেই শিক্ষা আমাদের হৃদয়কে স্পর্শ করে না এবং দীর্ঘমেয়াদে ফলপ্রসূ হয় না। আমি মনেকরি একজন শিক্ষক তাঁর সৃজনশীলতা, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে প্রতিটি পাঠদান কে শ্রেণীকক্ষে তাঁর শিক্ষার্থীদের কাছে শ্রেণী পাঠদানকে উৎসব আমেজে ভরপুর করে একঘেয়েমিপূর্ণ পরিবেশকে দূর করে শিক্ষার্থীর অর্জিত জ্ঞনে স্থায়ীত্ব আনয়ন করতে পারে। এই শিক্ষাক্রমের অভিজ্ঞতাভিত্তিক চারটি ধাপ যদি আমাদের শিক্ষার্থীদের মাঝে সঠিকভাবে সঞ্চালন করা হয় ( যেমনঃবাস্তব অভিজ্ঞতা, প্রতিফলনমূলক পর্যবেক্ষণ, বিমূর্ত ধারণায়ন এবং সক্রিয় পরীক্ষণ ) তাহলে গতানুগতিকতাকে পিছনে ফেলে নতুন সম্ভাবনার দ্বার উম্মূচোন করা সম্ভব। নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নের পথ হলো সকল শিক্ষকের জন্য বাস্তবভিত্তিক কার্যকরী প্রশিক্ষণ এর ব্যবস্থা, শিখন প্রক্রিয়ার সঙ্গে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবক সহ সংশ্লিষ্ট সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা।

এই কথা অনস্বীকার্য যে, পাঠ্যক্রম পরিবর্তনশীল, সময়, যুগের চাহিদ এবং আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য টেকসই শিক্ষা ব্যবস্থা পরিহার্য। ফলে পরিবর্তনে কার ও কোন অভিযোগ না করে সমাজ ও রাষ্ট্রের মূল্যবোধ সৃষ্টি লক্ষ্যে আমাদের সবার দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন আবশ্যক। আমি আশা করছি আপনার আমার সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় এই নতুন কারিকুলামের সফল বাস্তবায়নের মাধ্যমেই সমাজ ও রাষ্ট্রের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর দৃষ্টিভঙ্গির আমুল পরিবর্তন সম্ভব। পরিশেষ বলতে চাই এই কারিকুলামের স্থায়িত্ব ও সফল বাস্তবায়নের একটা বৃহত্তর অংশ হিসাবে শিক্ষকের আর্থিক ও সামজিক জীবন মানের পরিবর্তন আবশ্যক। শিক্ষা জাতীয়করনের মাধ্যমেই শিক্ষকের আর্থিক ও সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি সম্ভব। যেটা রাষ্ট্রকে আবশ্যকীয়ভাবে বিবেচনা করা উচিৎ।

লেখক:সিনিয়র সহকারী শিক্ষক, মাদাম বিবিরহাট শাহজাহান উচ্চ বিদ্যালয়, সীতাকুন্ড, চট্টগ্রাম। 

আরও পড়ুন
মে দিবসে খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের আখের রস বিতরণ

মে দিবসে খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের আখের রস বিতরণ

উপজেলা নির্বাচনের প্রচারণাই ব্যস্ত বিএনপির নেতা

উপজেলা নির্বাচনের প্রচারণাই ব্যস্ত বিএনপির নেতা

বাঁশখালীর প্রবীণ শিক্ষক আব্দুল মালেকের চির বিদায়ে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ

বাঁশখালীর প্রবীণ শিক্ষক আব্দুল মালেকের চির বিদায়ে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ

রাখাইনের গৃহযুদ্ধ ও বাংলাদেশ সীমান্তে প্রভাব নিয়ে ঢাকায় আন্তর্জাতিক সংলাপ

রাখাইনের গৃহযুদ্ধ ও বাংলাদেশ সীমান্তে প্রভাব নিয়ে ঢাকায় আন্তর্জাতিক সংলাপ

রবিবার দুবাই থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা দেবে এমভি আবদুল্লাহ

রবিবার দুবাই থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা দেবে এমভি আবদুল্লাহ

ক্ষমতায় যেতে বিদেশি প্রভুদের দাসত্ব করে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

ক্ষমতায় যেতে বিদেশি প্রভুদের দাসত্ব করে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

বিয়ের সেই পোশাক ছিঁড়ে ফেললেন সামান্থা

বিয়ের সেই পোশাক ছিঁড়ে ফেললেন সামান্থা

তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে

তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে

ট্রাকচাপায় ৩ ভ্যানযাত্রী নিহত

ট্রাকচাপায় ৩ ভ্যানযাত্রী নিহত

যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে সাড়া দিয়েছে ইসরায়েল : হামাস

যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে সাড়া দিয়েছে ইসরায়েল : হামাস

জাপানের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের উন্নয়নের পথপ্রদর্শক : মেয়র রেজাউল

জাপানের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের উন্নয়নের পথপ্রদর্শক : মেয়র রেজাউল

আত্মমর্যাদাশীল জাতি গড়তে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের বিকল্প নেই : জেলা প্রশাসক

আত্মমর্যাদাশীল জাতি গড়তে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের বিকল্প নেই : জেলা প্রশাসক